Dainik Sangbad – দৈনিক সংবাদ
Image default
FEATURED ট্রেন্ডিং

বর্তমান ও প্রাক্তন, দুই স্ত্রী মিলে স্বামীর বিরুদ্ধে করলেন ভয়ংকর ষড়যন্ত্র, হাত মেলালো মেয়েও

দিল্লি ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশনের (ডিটিসি) একজন কর্মচারী সঞ্জীব কুমারকে গুলি করার ঘটনা ঘিরে চমকপ্রদ তথ্য প্রকাশ্যে এসেছে এবং পুলিশ জানিয়েছে যে তার দুই স্ত্রীই তাকে হত্যার ভয়ঙ্কর ষড়যন্ত্র করেছিল। খুনের কয়েকদিন পর ডিটিসি কর্মচারীর স্ত্রী, প্রাক্তন স্ত্রী ও মেয়েকে খুনের অভিযোগে গ্রেফতার করে পুলিশ। পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্তরা হলেন ডিটিসি কর্মচারীর প্রথম স্ত্রী গীতা (৫৪), তার মেয়ে কোমল (২১) এবং দ্বিতীয় স্ত্রী গীতা ওরফে নাজমা (২৮)৷

গত ২-৩ বছর ধরে হত্যার ষড়যন্ত্র চলছিল:

দিল্লি পুলিশ জানিয়েছে যে ডিটিসি কর্মচারীর স্ত্রী, প্রাক্তন স্ত্রী এবং মেয়ে গত দুই-তিন বছর ধরে ওই ব্যক্তিকে হত্যার ষড়যন্ত্র করছিল। হত্যাকাণ্ডের পর তদন্তকারী কর্মকর্তারা দ্বিতীয় স্ত্রী নাজমার মোবাইলে ওই ব্যক্তির নম্বর প্লেটের একটি মুছে ফেলা ছবি পান। ৪৫ বছর বয়সী ডিটিসি কর্মচারী যখন গত ৬ই জুলাই যখন তার দ্বিতীয় স্ত্রী এবং নয় বছরের ছেলের সাথে একটি বাইকে যাচ্ছিলেন তখন তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়।

১৫ লাখ টাকা দিয়ে শ্যুটার ভাড়া করা হয়েছে

ইকবাল যে কিনা তার দ্বিতীয় স্ত্রী নাজমার খুড়তুতো ভাই, ডিটিসি কর্মচারী হত্যায় সহায়তা করেছিলেন এবং তাকেই একজন পেশাদার হত্যাকারীকে খুঁজে আনার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। একজন সিনিয়র পুলিশ অফিসার জানান যে ইকবাল নাঈম নামে একজন শুটারকে ভাড়া করেছিলেন, যাকে ডিটিসি কর্মচারীকে হত্যা করার জন্য ১৫ লাখ টাকা দেওয়া হয়েছিল।

এভাবেই প্রকাশ্যে আসে পুরো বিষয়টি:

পুলিশের ডেপুটি কমিশনার (দক্ষিণ-পূর্ব) ঈশা পান্ডে বলেছেন যে দ্বিতীয় স্ত্রী নাজমা পুলিশকে বলেছিলেন যে তার স্বামী গোবিন্দপুরীতে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। গুলির আঘাতের বিষয়ে তিনি কিছু বলতে পারেননি। এর পরে, পুলিশ সঞ্জীব কুমারের সহযোগী এবং ডিটিসি আধিকারিকদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল, কিন্তু কোনও ক্লু পাওয়া যায়নি। এরপর পুলিশ নাজমার কথায় সন্দেহ প্রকাশ করে তার মোবাইল ফোন বাজেয়াপ্ত করে। দিল্লি পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, নাজমার ফোন থেকে তার স্বামীর বাইকের নম্বর প্লেটের একটি মুছে ফেলা ছবি উদ্ধার করা হয়েছে।

এরপর পুলিশ ক্রমাগত নাজমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে, পরে সে জেরার মুখে ভেঙে পড়ে এবং তার অপরাধ স্বীকার করে। জিজ্ঞাসাবাদে নাজমা জানায়, এটা তার স্বামী সঞ্জীব কুমারের দ্বিতীয় বিয়ে। প্রথম স্ত্রী গীতা তাদের তিন সন্তানকে (কোমল সহ) নিয়ে দক্ষিণপুরীতে থাকেন।

খুনের পেছনের কারণ কী ছিল?

ডিসিপি ইশা পান্ডে জানিয়েছেন, সঞ্জীবের দ্বিতীয় স্ত্রী নাজমা প্রায় দুই-তিন বছর আগে প্রথম স্ত্রী ও সন্তানদের সম্পর্কে জানতে পারেন। এরপর তিনি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। জিজ্ঞাসাবাদে নাজমা জানায়, তার স্বামী তাকে প্রায়ই গালিগালাজ ও মারধর করত। পুলিশ সূত্র অনুযায়ী, মহিলারা জানিয়েছেন যে সঞ্জীব কুমার তার জীবন নষ্ট করেছে এবং তাই তারা একসাথে তাকে ধ্বংস করার এবং তার সম্পত্তি নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নেওয়ার ষড়যন্ত্র করেছিল।

Related posts

চাকরির খোঁজে বেরিয়ে ওমানে অন্য নারীদের সাথে শিকলবন্দি মহিলা! ভয়ঙ্কর বিভীষিকার শিকার

News Desk

মহিলাদের চূড়ান্ত সুখ বা অর্গ্যাজম অনুভূত হওয়ার জন্য কতক্ষন টানা যৌন মিলনের দরকার হয়

News Desk

কিছুটা স্বস্তি মিলল, দৈনিক সংক্রমণ নিম্নমুখী, নামলো ২ হাজারের নীচে

News Desk