Dainik Sangbad – দৈনিক সংবাদ
Image default
FEATURED ট্রেন্ডিং

খাবার ও ওষুধের বিনিময়ে যৌনমিলনে বাধ্য হচ্ছেন এই দেশের নারীরা! কোথায় জানেন?

গত কয়েক মাসে এই দেশে পতিতাবৃত্তির কাজ দ্রুত বেড়েছে। এমনকি খদ্দেরদের পীড়াপীড়িতে এই দেশের নারীদের অনিরাপদ যৌন সম্পর্ক করতে বাধ্য করা হচ্ছে। কোন দেশ জানেন? পড়ুন বিস্তারিত..

শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক অবস্থা দিন দিন খারাপ হচ্ছে। মানুষের নিজেদের সংসার চালাতে কষ্ট হচ্ছে। এমনকি খাদ্য ও ওষুধও দুষ্প্রাপ্য হয়ে পড়েছে। এ কারণে গত কয়েকদিনে এখানে দ্রুত পতিতাবৃত্তি বেড়েছে। এখানকার অনেক নারী পেটের দায়ে যৌনকর্মী হতে বাধ্য হচ্ছেন। আয়ুর্বেদিক স্পা সেন্টারের আড়ালেও এখানে নির্বিচারে চলছে যৌনকর্ম। খদ্দেরদের জন্য পর্দা ও বিছানা পেতে এসব স্পা সেন্টারকে অস্থায়ী পতিতালয়ে পরিণত করা হচ্ছে।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই দেশের পতিতাবৃত্তির সঙ্গে যুক্ত বেশিরভাগ নারীই আসছেন টেক্সটাইল শিল্প থেকে। জানুয়ারি পর্যন্ত কাজ থাকলেও এরপর দেশের অর্থনীতির অবনতির কারণে তাদের এই ব্যবসায় আসতে হয়।

শ্রীলঙ্কার দৈনিক সংবাদপত্র দ্য মর্নিং-এর মতে, টেক্সটাইল শিল্পে কর্মরত নারীরা চাকরি হারানোর ভয়ে এবং দেশের দুর্বল অর্থনীতির কারণে বিকল্প কর্মসংস্থান হিসেবে পতিতাবৃত্তির দিকে ঝুঁকছেন। একজন যৌনকর্মী সংবাদপত্রকে বলেছেন, ‘আমরা শুনেছি যে দেশের অর্থনৈতিক সংকটের কারণে আমরা আমাদের চাকরি হারাতে পারি এবং এই মুহুর্তে আমরা যে সেরা বিকল্পটি দেখছি তা হল যৌনতার কাজ।’

মহিলা বলেন, “আগের কাজে, আমাদের মাসিক বেতন ছিল প্রায় ২৮,০০০ টাকা এবং ওভারটাইম দিয়ে আমরা সর্বোচ্চ ৩৫,০০০ টাকা উপার্জন করতে পারতাম কিন্তু পতিতাবৃত্তির কাজে নিযুক্ত হয়ে আমরা প্রতিদিন প্রায় ১৫,০০০ টাকার বেশি আয় করি। সবাই আমার সাথে একমত হবে না, কিন্তু এটা সত্য। ইউনাইটেড কিংডমের দ্য টেলিগ্রাফও একটি প্রতিবেদনে দাবি করেছে যে এই বছরের জানুয়ারি থেকে কলম্বোতে যৌনকর্মে জড়িত মহিলাদের সংখ্যা ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

রিপোর্ট অনুযায়ী, এই মহিলারা কলম্বোর পশ্চিমাঞ্চল থেকে এসেছেন যারা আগে টেক্সটাইল শিল্পে কাজ করতেন। এই রিপোর্টগুলি শ্রীলঙ্কার যৌনকর্মীদের জন্য একটি অ্যাডভোকেসি গ্রুপ স্ট্যান্ড আপ মুভমেন্ট লঙ্কা (SUML) এর উদ্ধৃতি দিয়েছে। প্রতিবেদনে এসইউএমএলের নির্বাহী পরিচালক আশিলা ডান্ডেনিয়াকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে যে এই মহিলারা তাদের সন্তান, পিতামাতা এবং ভাইবোনের খরচ বহন করে। তাই তাদের কাছে বিকল্প থাকছে না।’

পতিতাবৃত্তি বৃদ্ধির অনেক কারণ রয়েছে, যার মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হল মুদ্রাস্ফীতি। অস্থির এই দেশে জ্বালানি, খাদ্য ও ওষুধের ঘাটতি নারীদের জন্য পরিস্থিতিকে আরও হতাশাজনক করে তুলেছে। বেশ কিছু প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে যে খাবার এবং ওষুধের মতো প্রয়োজনীয় জিনিসের বিনিময়ে মহিলারা স্থানীয় দোকানদারদের সাথে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করতে বাধ্য হন। কলম্বোর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে শিল্পাঞ্চলে পতিতা ব্যবসার প্রচার করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

প্রতিবেদনে আরও দাবি করা হয়েছে যে এই অসহায় নারীদের ক্লায়েন্টদের পীড়াপীড়িতে অনিরাপদ যৌন সম্পর্ক করতে বাধ্য করা হয়। শুধু তাই নয়, এসব নারীকে প্রায়ই গ্রাহকদের লাঞ্ছনা ও মারধরের শিকার হতে হয়।

Related posts

টিকটিকির সমস্যায় নাজেহাল! এই সহজ উপায়ে টিকটিকির উপদ্রব থেকে মিলবে মুক্তি !

News Desk

৪০ দিন লড়াই শেষে চীর নিদ্রায় রাজু শ্রীবাস্তব! শেষকৃত্য দিল্লিতেই, রয়েছে পরিবার

News Desk

ডেটিং সাইট ঘেঁটে ৬৯ এর বৃদ্ধকেই মনে ধরলো ২৭ এর তরুণীর! কি কারণে শুনলে অবাক হবেন

News Desk