Dainik Sangbad – দৈনিক সংবাদ
Image default
FEATURED ট্রেন্ডিং

যখনই শারীরিক সম্পর্ক হতো প্রেমিক গোপনে করত এই কাজ, জানতে পেরে শিহরিত তরুণী!

কখনও কখনও একটি সম্পর্কের মধ্যে এমন কিছু ঘটে যা সহ্য করা কঠিন। অনেক সময় সম্পর্কে থাকা কোনো মানুষ ওপর ব্যক্তির উপর তাদের অধিকার জাহির করতে শুরু করে, যার কারণে সম্পর্কের মধ্যে দূরত্ব আসতে শুরু করে। আমরা আপনাকে এখানে এমন একটি ঘটনার কথা বলতে যাচ্ছি।

একজন মহিলা নিজের অভিজ্ঞতা সোশ্যাল মিডিয়া শেয়ার করেছেন। তিনি বলেন, “টম এবং আমি একটি ডেটিং অ্যাপের মাধ্যমে একে অপরের সাথে দেখা করি। টম ছিলেন খুব লম্বা, সুদর্শন এবং মজার মানুষ, এবং প্রথমবার যখন তিনি কথা বলেছিলেন, তিনি আমাকে পাগল করে দিয়েছিলেন। কিন্তু তার প্রোফাইল অনেকের সাথে মিলে গিয়েছিল কিন্তু টম অন্য সবার থেকে খুব আলাদা। দেখতে সুন্দর হওয়ার পাশাপাশি আমি কেমন আছি এবং জীবন সম্পর্কে আমি কী ভাবি সেদিকে তার খেয়াল ছিল।”

মহিলাটি বলেন যে তিনি সর্বদা আমার সাথে কথা বলতেন এবং আমাকে দিনরাত মেসেজ করতেন। তিনি আমাকে খুশি করার জন্য অনেক কিছু করতেন। মহিলা বলেন, “টমের সাথে দেখা করার আগে আমার এক প্রেমিক ছিল যার সাথে আমার ব্রেকআপ হয়েছিল। যার কারণে আমার আত্মবিশ্বাস খুব দুর্বল হয়ে পড়ে। তা সত্ত্বেও, আমি তার সাথে দেখা করেছি।

মহিলাটি জানান যে আমি যখন টমের সাথে যখন প্রথমবার দেখা করেছি, তখন আমি বুঝতে পেরেছিলাম যে তিনি খুব ভাল মানুষ। সে এমন অনেক কথা বলতো যা আমার কাছে বেশ সঠিক মনে হয়েছে। যখন আমি টমের সাথে দেখা করি, তখন আমার মনে হয়েছিল যে তিনি হয়তো বাকি ছেলেদের থেকে বেশ আলাদা এবং একজন ভালো মানুষ।

ওই মহিলা বলেন, আমরা সব সময় শুধু পাবলিক প্লেসেই দেখা করতাম। এর পরে, একদিন আমি আমার বাড়িতে একটি পার্টি দি যেখানে টম এবং কিছু বন্ধু উপস্থিত ছিলেন। আমরা একটি পার্টি করি এবং প্রচুর মদ্যপান করি। পার্টি শেষ হওয়ার পরে, সবাই চলে গেল কিন্তু টম গেল না। আমরা সোফায় বসে কিছুক্ষণ কথা বলে তারপর বেডরুমে চলে গেলাম। আমি তখন ড্রয়ার থেকে একটা কনডম বের করে তাকে দিলাম। আমরা দুজনেই অন্তরঙ্গ হয়ে গেলাম।

অন্তরঙ্গ হওয়ার পর বুঝলাম টম কনডম ব্যবহার করেননি। এই প্রথম আমাদের মধ্যে এই ধরনের কিছু ঘটেছে, তাই আমি মুহূর্ত টা খারাপ করতে চাই নি। আমি কিছু না বলে চুপচাপ ঘুমিয়ে পড়লাম। প্রসঙ্গত সম্মতি ছাড়া যৌন মিলনের সময় কনডম অপসারণ করা যুক্তরাজ্যে অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হয়।

তার এই অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিয়ে মহিলাটি বলেছিলেন, “পরের বার যখন টম এবং আমি আবার দেখা করলাম, আমি তাকে একটি কনডম দিয়েছিলাম।” সম্পর্ক করার পর আমি তাকে কন্ডোমের কথা জিজ্ঞেস করলাম, তখন সে বলল সে নিশ্চয়ই কোথাও মাটিতে পড়ে আছে। আমি ঘরের সব জায়গায় কনডম খুঁজলাম, কিন্তু কোথাও পেলাম না। এই বিষয়ে টম বলেছিলেন যে আমি বিষয়গুলিকে খুব গুরুত্ব সহকারে নিচ্ছি এবং আমার এটি নিয়ে এত ভাবা উচিত নয়।

মহিলাটি বলেন, “যখন আমরা তৃতীয়বার দেখা করি, তখন তিনি একই কাজটি পুনরাবৃত্তি করেছিলেন। আমি রেগে গেলে টম বললো আমি পাগল। যখন আমি টমকে বলেছিলাম যে আমার সম্মতি ছাড়া কনডম ব্যবহার না করা একধরনের ধর্ষণ, সে আমার কথা শুনে উচ্চস্বরে হেসেছিল। তিনি তখন বলেছিলেন যে আমি এই ছোটো ছোটো জিনিসগুলি নিয়ে একটু বেশীই মাথা ঘামাচ্ছি।

এর পরেও টমের একই মনোভাব চলতে থাকে। একবার সে আমার সাথে জোর করে শারীরিক সম্পর্ক করার চেষ্টা করে। আমি সাধ্যমত চেষ্টা করলাম তাকে থামাতে। অবশেষে, আমি তাকে আমার বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছিলাম এবং ভীষণ কেঁদেছিলাম। এর পরে আমি একজন মহিলার সাথে দেখা করি যিনি বলেছিলেন যে টম তার প্রেমিক। মহিলার একটি সন্তান ছিল এবং তিনি গর্ভবতী ছিলেন। মহিলাটি ফোনে আমার এবং টমের মেসেজ দেখেছিল। এর পরে তিনি আমাকে টম থেকে দূরে থাকতে বলেছিলেন।

মহিলা জানান যে আমি তাকে আশ্বস্ত করেছি যে আমার এবং টমের মধ্যে এখন কিছুই নেই। আমি যখন তাকে পুরো ব্যাপারটা বললাম তখন সে আমাকে বলল যে আমি খুব মোটা এবং কুৎসিত ছিলাম এবং এটা আমার ভ্রম ছিল যে টমের আমার প্রতি কোন আগ্রহ আছে।

সূত্র: Aajtak

Related posts

‘অপহরণ’ করে শিশুকন্যাকে সিঁড়ির নীচের ঘরে লুকিয়েছিল বাবা-মা! দু’বছর পর খুঁজে পেল পুলিশ

News Desk

কল সেন্টারে গোপনে অভিযান চালাতেই সামনে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য! কি কাজ চলছিল জানেন!

News Desk

দেশে করোনায় সামান্য কমল দৈনিক সংক্রমণ, কিছুটা কমল মৃত্যুও

News Desk