Dainik Sangbad – দৈনিক সংবাদ
Image default
FEATURED ট্রেন্ডিং

কেন ভেঙে ফেলা হল নয়ডার টুইন টাওয়ার? রইলো সবচেয়ে বড় প্রশ্নের উত্তর

রবিবার দুপুর আড়াইটায় যখন টুইন টাওয়ারটি বিস্ফোরিত হলো, তখন এটি শত শত ফ্ল্যাট ক্রেতাদের বিজয়ের প্রতিধ্বনি হিসাবে শোনাবে যারা গত দশ বছর ধরে আইনি লড়াই চালিয়ে শেষ পর্যন্ত এখানে নিয়ে এসেছেন বিষয়টা।

নয়ডার সেক্টর 93A-তে আজ আকাশ ছোঁয়া দুটি বিল্ডিং ধূলিসাৎ করা হয়েছে। সবার চোখ ছিল টুইন টাওয়ারের দিকে। বিকট শব্দে কুতুব মিনারের থেকে উঁচু টাওয়ারগুলো কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই ধুলো ও ধ্বংসস্তূপে পরিণত হলো। কিন্তু কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত টুইন টাওয়ার কেন ভেঙে ফেলা হচ্ছে জানেন? কি ভুল হয়েছিল? আসুন পুরো বিষয়টি খুলে বলা হোক।

রোববার দুপুর আড়াইটায় টুইন টাওয়ারে বিস্ফোরণ ঘটলে তা যেন ছিল শত শত ফ্ল্যাট ক্রেতাদের বিজয়ের প্রতিধ্বনি যারা সব কিছু দিয়ে ১০ বছর ধরে আইনি লড়াই লড়ে দুর্নীতির মাটিতে দাঁড়িয়ে থাকা আকাশচুম্বী স্থাপনাকে মাটিতে নামিয়ে নিয়ে আসে। সুপারটেক টুইন টাওয়ার তৈরি করতে ২০০ কোটি টাকা খরচ করেছিল এবং এটি ৮০০ কোটি টাকা আয় করবে বলে আশা করা হয়েছিল।

সুপারটেককে ২৩ ডিসেম্বর ২০০৪ সালে এমারল্ড কোর্টের নামে সেক্টর 93A-এ একটি জমি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল, যেখানে ১৪ তোলা টাওয়ারের পরিকল্পনা পাস করা হয়েছিল। এরপর পরিকল্পনাটি তিনবার সংশোধন করে দুটি নতুন টাওয়ার অনুমোদন করা হয়। এই দুটি টাওয়ারই গ্রিন পার্ক, চিলড্রেন পার্ক ও দ্বিতল বাণিজ্যিক কমপ্লেক্সের জমিতে নির্মিত। ২০১০ সালের মার্চ মাসে ফ্ল্যাট ক্রেতারা প্রথমবারের মতো এর বিরুদ্ধে তাদের আওয়াজ তোলেন এবং লড়াই এলাহাবাদ হাইকোর্ট থেকে সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত পৌঁছয়। উভয় আদালত থেকেই টাওয়ারটি ভেঙে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।

সুপারটেক প্রায় ১৫ বছর আগে এমারল্ড কোর্ট প্রকল্প শুরু করেছিল। এটিতে ৩,৪ এবং ৫ BHK ফ্ল্যাট রয়েছে। এই সোসাইটি নয়ডা এবং গ্রেটার নয়ডা এক্সপ্রেসওয়ের কাছাকাছি। বর্তমানে একটি ফ্ল্যাটের দাম ১ থেকে ৩ কোটি টাকা। প্রাথমিকভাবে, নয়ডা কর্তৃপক্ষকে নির্মাতার দেওয়া পরিকল্পনা অনুসারে, ১৪টি ৯ তলা টাওয়ার তৈরি করার কথা ছিল। এরপর তিন দফা সংশোধন করা হয়। ২০১২ সালে, সুপারটেক ১৪টির পরিবর্তে ১৫টি টাওয়ার তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেয় এবং ৯ থেকে ১৪ তলা পর্যন্ত বাড়ানোর পরিকল্পনা করে। ৪০ তলা বিশিষ্ট দুটি টাওয়ার নির্মাণের পরিকল্পনাও করা হয়ে যায়।

সবুজ এলাকার প্রতিশ্রুতি দিয়ে টুইন টাওয়ার তৈরি করা হয়েছিল:

হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্ট এ মামলায় নির্মাতাকে দোষী সাব্যস্ত করে ফ্ল্যাট ক্রেতাদের পক্ষে রায় দেন। টুইন টাওয়ার নির্মাণে জাতীয় বিল্ডিং কোডের নিয়ম লঙ্ঘন করা হয়েছে। সুপারটেক এমারেল্ড কোর্টে লোকেরা যখন ফ্ল্যাট কিনেছিল, তখন তাদের টুইন টাওয়ারের পরিবর্তে সবুজ এলাকার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল। সুযোগ-সুবিধা দেখে ক্রেতারা এমারেল্ড কোর্ট প্রকল্পে ফ্ল্যাট বুক করেছেন। কিন্তু পরে নির্মাতা নয়ডা কর্তৃপক্ষের আধিকারিকদের সঙ্গে যোগসাজশে এখানে টুইন টাওয়ার তৈরি করেন। নিয়ম অনুসারে, টাওয়ারগুলির মধ্যে দূরত্ব ১৬ মিটার হওয়া উচিত, তবে এখানে মাত্র ৯ মিটার বাকি ছিল। এখানে টুইন টাওয়ার নির্মাণ শুরু হলে ক্রেতারা প্রতারণা বুঝতে পেরে আদালতের দ্বারস্থ হন।

Related posts

গর্ভাবস্থায় মাইক্রোওয়েভে রান্না করা খাবার খাচ্ছেন না তো! হতে পারে এই সমস্ত ঝুঁকি

News Desk

রোজ রোজ কুপ্রস্তাব গৃহবধূকে! ‘শিক্ষা’ দিতে যুবকের যৌনাঙ্গ কেটে দেওয়ায় গ্রেফতার গৃহবধূ

News Desk

হানিমুনে গিয়েছিলেন ব্রিটিশ দম্পতি, রাতে মদ্যপ হয়ে ঘটালেন এমন কাণ্ড শুনে সকলে হতবাক!

News Desk